বিস্ফোরণের মুখে তাজমহল, সরিয়ে নেয়া হয়েছে এলাকার জনসাধারণকে

0
39

অন্যান্য সব দিনের মতো চৌঠা মার্চ বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই লোকে লোকারণ্য ছিলো আগ্রার তাজমহল। হঠাৎ সোরগোল শুরু হয়ে যায় জন সাধারনের মধ্যে। বোমা আতঙ্কে হৈচৈ পরে যায় চারিদিকে। মহলের সব প্রধান দরজা বন্ধ করে দেয়া হয়। মুহূর্তের মধ্যেই জনশূন্য হয়ে যায় পুরো তাজ মহল। জন সাধারণকে সেভ জায়গায় নিয়ে এলাকা খালি করে ফেলে স্থানীয় পুলিশ বাহিনী।

পুলিশ জানিয়েছে, নাম পরিচয়হীন অজ্ঞাত এক ব্যক্তি প্রথম পুলিশকে ফোন করে এবং বলে তাজ মহলে বোমা পুতে রাখা হয়েছে যাতে অনেক মানুষের প্রাণহানির আসঙ্কা রয়েছে। খবর পাওয়া মাত্রই এক চাঞ্চল্যকর পরিবেশ সৃষ্টি হয়। হৈচৈ পরে যায় সব জায়গায় কারন তাজমহলে শুধু দেশিও মানুষই নয় অনেক বিদেশী পর্যটকও দেখতে আসেন। খবর পাওয়া মাত্রই ভারতের বম্ব ডিস্পোজাল বাহিনী পৌছে যায় তাজমহলে। CISF ও বম্ব ডিস্পজাল বাহিনী তাজমহলের বিভিন্ন স্থানে তল্লাশি অভিজান চালায়।

বোমার খবরটি সর্বপ্রথম আলীগড় থেকে এসেছিল বলে জানিয়েছেন সেখানকার স্থানীয় পুলিশ পরবর্তীতে ফিরোজাবাদ থেকেও এই একই খবর পুনরায় আসার কথা নিশ্চিত করে পুলিশ। দ্বিতীয়বারের মতো একই খবর পাওয়ায় ব্যপারটি গুরুত্বের সাথে দেখছে পুলিশ।

করনাকালীন সময় সংক্রমণ ঠেকাতে বন্ধ রাখা হয়েছিলো তাজমহল। দীর্ঘ প্রায় ৬ মাস পর বিগত ২০২০ সালের সেপ্টেম্বারে দর্শনার্থী ও পর্যটকদের জন্য খুলে দেয়া হয় তাজমহল। তবে সংক্রমণ ঠেকাতে এখনো সকল ধরনের বিধিনিষেধ ও নিয়ম কানুন মেনেই পর্যটকরা দর্শন করতে আসছে পৃথিবীর সপ্তম আশ্চর্যের একটি তাজমহলকে।

পৃথিবীর সপ্তম আশ্চর্যের একটি হোল ভারতের আগ্রার তাজমহল। তাই দেশি-বিদেশি সকল পর্যটকদের আকর্ষণের একটি কেন্দ্রবিন্দু হলো আগ্রার তাজমহল। প্রতি বছর প্রায় সত্তর লাখ পর্যটক বিনোদনের জন্য দর্শন করতে যায় এই তাজমহল। এছাড়াও প্রায় ত্রিশ লাখ লোক প্রতিবছর আগ্রা ফোর্টে ঘুরতে যায়। ভারতের উত্তর প্রদেশের সরকার প্রতিবছর এই দুই পর্যটন কেন্দ্র থেকে বিপুল পরিমান টাকা ইনকাম করে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here