মহান মাতৃ ভাষা দিবস এর উপর কবিতা

0
115
২১-শে-ফেব্রুয়ারি

বাঙলা আমার রাষ্ট্র ভাষা
লেখকঃ মাসুদ বিন মান্নান
যুগে যুগে আসবে ই জেনো বীর তিতুমীর! বৃটিশ যেমন পালিয়ে গেছে হয়ে নত শির। সাতচল্লিশে গড়েছিলেন তিনি দুর্গ বাঁশেরকেল্লা। সেই চেতনায় জীবন ধরেছে বাজি কৃষাণ , মাঝি, মাল্লা।
বৃটিশের সেই রণক্ষেত্রের
ফসল ছিল বেশ! উপমহাদেশ দু’ভাগ হলো পাক-ভারতের দেশ। দুই সীমানার গন্ডি ছিল কাঁটাতারের বেড়া। দুই দেশের ই মিল ছিল না চলছে বাঁকা তেড়া।
মাঝে সাজে মিল অমিলে করতো নীতি ভঙ্গ!
পাকিস্তানি বুদ্ধি এঁটে শাসন করল বঙ্গ। উর্দু ছিলো মাতৃভাষা পাক শাসকের বোল । বঙ্গ ও তাই উর্দু করার চলছে মতবোল।
বাংলা আমার জন্মভূমি, মায়ের ভাষা ভাই ! বাংলা ই হবে রাষ্ট্র ভাষা তাহার জুড়ি নাই। মাতৃভাষা বাংলা চাই, শুরু গন আন্দোলন! সেই সুবাদে গড়েছি তাই মজলিসে তমদ্দুন।
পাক শাসকের ছলা-কলায় একটি ই ছিল বোল! উর্দু ই হবে মুখের ভাষা যত ই করিস রোল।
ঢাবির সেরা আমতলাতে গর্জে ওঠে সবে! বাংলা আমার জন্মভূমি রাষ্ট্র ভাষা ই হবে।
ফজলু বাবু বিড়ম্বনায় পড়েছেন
হীতে তার, রাষ্ট্র ভাষা উর্দু ই হবে রুখবে কে আবার!
বায়ান্নর এই ফেব্রুয়ারীর একুশ তারিখ ক্ষণে! খাজা নিজাম জারি করলো জরুরী সব রণে।
রাষ্ট্র ভাষা বাংলা চাই স্লোগান নিয়ে মুখে! মাতৃভাষা বাংলা ই হবে গর্জে ওঠো রুখে। লিয়াকতের কটুকৌশল ভেস্তে গেল শেষে! পাক পুলিশের গুলির চোটে মেধাবী সব ছাত্র নেতা জীবন দিলেন হেঁসে।
ফেব্রুয়ারীর একুশ তারিখ ভোর বেলাতে,প্রভাত ফেরীর ফুল ঝুড়িতে ,স্মরণ করি আরেক বার! ভাষার তরে জীবন দিলেন রফিক, সালাম, বরকত আর
আঃ জব্বার ।

একুশ আমার অহংকার
লিখেছেনঃ মাসুদ বিন মান্নান
ফেব্রুয়ারির একুশ তারিখ
গর্জে উঠো আরেকবার,
তোমরা কি ভাই গেছো ভুলে?মুক্ত বাতাস কিনতে গিয়ে
জীবন দিলেন রফিক-জাব্বার!
রাষ্ট্র ভাষা বাংলা চাই
স্লোগান ছিল সঙ্গে!
বাংলা আমার বচন হবে,
আমি জম্মেছি এই বঙ্গে ।
পাক হানাদার খড়গ ছিল মুখের
বুলি ছিনতে! সালাম-বরকত
শহীদ হলেন বাঁক স্বাধীনতা কিনতে।
রাষ্ট্র ভাষা বিলিন হয়নি রয়েছে তাই আস্ত! কে ? তুমি ভাই স্বপ্নে বিভোর বাঁক স্বাধীনের খড়গ হয়ে, স্বাধীনতা হরণ করতে ব্যাস্ত!
প্রভাতফেরির মিছিল করে বইছো ফুলের বন্যা!
আজোও থামেনি মাতৃভাষার
শহীদ জননীর কান্না।
পরাধীনতার গ্লানি মুছো গর্জে ওঠো আরেক বার ! বাঁক স্বাধীনের অধীকার চাই , একুশের এই ভয়াল ক্ষণে আইয়্যুব শাহীর মসনদ ধরে গর্জে ছিল রফিক-জাব্বার!
রাষ্ট্র ভাষা বাংলা চাই বায়ান্নর এই হুঙ্কার !
শহীদ জননীর বুক খালি করে পুলিশের গুলিতে লাশ হয়ে চির উন্নত করেছেন যারা বিশ্বময় আমার মাতৃভাষা! তাদের ত্যাগে অমর একুশে আজ বিশ্ব জুড়ে রয়েছে গৌরব গাঁথা।
অমর একুশে বাংলার গৌরব মাখা শত-সহস্র দূর্নীবার!অজস্র শহীদের রক্তে কেনা একুশ আমার অহংকার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here