যানজট থেকে মুক্তি দিতে বাজারে চলে এলো উরন্ত ট্যাক্সি

0
99

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি আমাদের জীবনকে কতটা বদলে দিচ্ছে তা আমরা সবাই জানি এবং ভবিষ্যতে আমাদের জন্য প্রযুক্তি কি নিয়ে আসতে চলেছে তা আমরা ভাবতে না পারলেও কিছুটা আন্দাজ করতে পারি এই মর্মে যে প্রযুক্তি হয়তো বর্তমান সমস্যার একটা সমাধান খুব শীঘ্রই নিয়ে আসবে। যেমনঃ হলিউড ফিল্ম মেকার রেডলি স্কট, ডেনিস ভিল্লেনেউভে, লুক্স স্কট, সিনিচিরো ওয়াতানবে তাদের ব্লেড রানারে মুভিতে এবং বলিউড ফিল্ম মেকার হ্যারি বাওয়েজা তার লাভ স্টোরি মুভিতে দেখিয়ে ছিলেন ভবিষ্যতে লস এঞ্জেলস এবং মুম্বাই শহরে আকাশের মহাসড়কে ছুটে চলবে পাখাওয়ালা সব উড়ন্ত গাড়ি।

Capture min

প্রযুক্তি এখন এতটাই এগিয়ে গিয়েছে যে চলচ্চিত্র নির্মাতারা হয়তো ভাবতেই পারেনি যে তাদের দেখানো সেই কল্পনার উড়ে চলা গাড়ি একদিন বাস্তবে এই পৃথিবীর আকাশে ছুটে চলবে। সবার স্বপ্নকে তাক লাগিয়ে উরন্ত ট্যাক্সি আজ বাস্তবে রূপ পেয়েছে।

পুরো বিশ্ব যখন রাস্তায় বসে ক্লান্ত হয়ে পড়ে তখন উড়ন্ত গাড়ির স্বপ্ন যেন সমস্ত ক্লান্তির অবসান ঘটায়। আমরা যখন জ্যামের অত্যাচারে উড়ন্ত গাড়ির স্বপ্ন দেখেছিলাম, তখন নেদারল্যান্ডসের একটি সংস্থা স্বপ্নটি বাস্তবায়িত করে ফেলেছে। এই গাড়ীটিকে পাল-ভি লিবার্টি বলা হয় ‘গাড়িটি প্রথম বিশ্ব-অনুমোদিত উড়ন্ত / উরুক্কু গাড়ি, গাড়িটি রাস্তায় ১৬০ কিলোমিটার গতিতে চলতে সক্ষম হয়।

Capturelkufykcfj min

নেদারল্যান্ডস ভিত্তিক উরুক্কু গাড়ি প্রস্তুতকারকের পাল-ভি লিবার্টি ‘গাড়িটি ইউরোপীয় ইউনিয়ন দ্বারা অনুমোদিত হয়েছে। পাল-ভি সংস্থাটি প্রায় ৮ বছর ধরে গাড়ি প্রকল্পে কাজ করছে। ২০১২ সাল থেকে এই গাড়িটি রাস্তায় চালিত হওয়ার সাথে সাথে তার ডানাগুলি আকাশে উড়ে যেতে পারে তাই চালনার জন্য একটি শক্তিশালি লাইসেন্সের প্রয়োজন। এটি ঘন্টায় ১২০ মাইল গতিতে ৩১০ মাইল অবধি উড়তে পারে। এই গাড়ীর প্রোপেলারটি হেলিকপ্টারের মতোই কাজ করে। প্রোপেলারটি অবতরণের সময় ভাঁজ করা হয় এবং এর লেজটি রাস্তায় চলে।

রবার্ট ডিঙ্গামেঙ্গসির মতে, গাড়ি ও বিমানের মিশ্রণে তৈরি হাইব্রিড এই যানটি বিশ্ব দরবারের একটি গুরুত্বপূর্ণ দিক উন্মোচন করবে। এক্ষেত্রে পাল-ভি প্রথম প্রতিষ্ঠান হলেও আরও অনেক প্রতিষ্ঠান ধীরে ধীরে উত্থিত হবে। পাল-ভি সংস্থা শুরুতে ৯০ টি গাড়ি বাজারে ছাড়ছে। এটির জন্য প্রায় ৫ লাখ ৮৩ হাজার ৫১৫ মার্কিন ডলার ব্যয় হতে পারে।

Capturekjfjut min

আগামি দশকগুলোতে আমাদের জীবনযাত্রার মান এমনকি যাতায়াত ব্যবস্থার উন্নতি প্রকল্পে আসতে চলেছে উরন্ত ট্যাক্সি। ব্যাটারি ও কম্পিউটারের এই যুগে বিজ্ঞান এততাই উন্নতি করেছে যে মানুষ এখন ব্যাক্তিগত ব্যবহারের জন্য এই ধরনের গাড়ি তৈরি করছে এবং এই গাড়ি আকাশের কোন পথে চলাচল করবে সেই পথও আবিষ্কার করছে।

প্রযুক্তির এই উন্নয়নকে মাথায় রেখে আপনার কি মনে হয় প্রযুক্তি আমাদের জিবনযাত্রাকে সহজ করতে আমাদের জন্য কি আনতে চলেছে?

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here