ফেব্রুয়ারিতেই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার ব্যাপারে আশাবাদি শিক্ষামন্ত্রী

0
68

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি ২০২১ সালের জুন মাসে এসএস সি ও সমমানের পরীক্ষা নেয়ার ব্যাপারে আশা প্রকাশ করেছেন । এসএস সি ও সমমানের পরীক্ষা পিছিয়ে যাচ্ছে, করোনাভাইরাস সংক্রমণের কারণে । ২০২০ সালের SSC এবং HSC ও সমমানের পরীক্ষা, এই বছর ফেব্রুয়ারিতে নেওয়া সম্ভব হয়েছে কিন্তু দেশে করোনা ভাইরাসের প্রকোপ দিন দিন বাড়তে থাকায় এইচএসসি পরীক্ষা আর নেওয়া সম্ভব হয়নি ।

এইচএসসি পরীক্ষার আগে ১৭ মার্চ থেকেই বন্ধ করে দেওয়া হয় দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান । প্রথম করোনায় আক্রান্ত রোগী গত ৮ মার্চ দেশে শনাক্তের পর ১৭ মার্চ থেকে বন্ধ রাখা হয় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান গুলো । দফায় দফায় এরপর বেশ কয়েকবার বাড়ানো হয় ছুটি । সর্বশেষ আগামী ১৬ জানুয়ারি পর্যন্ত ছুটি বাড়িয়েছে সরকার।
মঙ্গলবার (২৯ ডিসেম্বর) দুপুর ২টায় এক ভার্চুয়াল অনলাইনে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়ের সময় সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেন,’’প্রত্যক্ষ শিক্ষার সকল ধরনের কার্যক্রম বন্ধ হয়ে যাওয়ায় গত ১৬ই মার্চ থেকে পুরো সিলেবাস শেষ করা সম্ভব হয়নি এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার্থীদের ২০২১ সালের সিলেবাস । এখন কার্যক্রম চলছে কাস্টমাইজ সিলেবাস করার । শিক্ষার্থীদের আমরা এ বিষয়ে জানাতে পারব আগামী ১৫ জানুয়ারির মধ্যে । সিলেবাসকে ছোট করা হবে কাঁটছাট করব , পরের স্তরে যেতে যেগুলো প্রয়োজন সেগুলো মাথায় রেখে সিলেবাসকে ছোট করা হবে । দশম ও দ্বাদশ শ্রেণি যেন নতুন সিলেবাসে ক্লাস করে পরীক্ষা দিতে পারে। সেজন্য স্কুলগুলো খুলে দেওয়ার চেষ্টা করব এবং ক্লাসরুমে পড়ানোর উদ্যোগ নেব বলে আশা করছি , ফেব্রুয়ারি থেকে এপ্রিল এই সময়কালে (এসএসসি পরীক্ষার্থীদের), ক্লাসরুমে পড়ানো যায় সেই চেষ্টা করছি । পরিস্থিতি যদি অনুকূলে থাকে তবে ২০২১ সালের জুলাই-অগাস্ট নাগাদ এই পরীক্ষা গ্রহণের আশা প্রকাশ করছি।”
সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি আরও বলেন, এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের ‘পুনর্বিন্যস্ত’ সিলেবাস ৩১ জানুয়ারির মধ্যে জানিয়ে দেওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে এসব তথ্য জানান শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি। এ সময় তিনি শিক্ষার বিভিন্ন পদক্ষেপ তুলে ধরেন। ওই সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা প্রসঙ্গে বলেছিলেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান গুলো করোনা ভাইরাসের প্রকোপ না কমলে খোলা সম্ভব হবে না । সাধারণত শীতের প্রকোপ মধ্য জানুয়ারি পর্যন্ত থাকে। এই সময়ের মধ্যে সকল ভর্তি-প্রক্রিয়াও শেষ হয়ে যাবে।
এরপর যদি আমাদের দেশে করোনার প্রকোপ কমে যায়, তবে স্বল্প পরিসরে হলেও আমাদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার পরিকল্পনা রয়েছে এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের জন্য। কিন্তু সকল শ্রেণির শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার জন্য আরও কিছু সময় দেরি হতে পারে ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here