নবীজি (সঃ) এর বাণী প্রমাণিত হল, কেয়ামতের পূর্বাভাস, দিন শেষ হচ্ছে ২৪ ঘন্টার আগেই

0
74

২৪ ঘন্টায় ১ দিন এই সত্য এতোদিন ধরে জেনে আসলেও বিজ্ঞানীরা দিল নতুন তথ্য। তাদের দাবি পৃথিবীর গতি অর্ধশত বছর ধরে বেরেছে। এই কারণে একদিনের মেয়াদ ২৪ ঘন্টার কম হচ্ছে। বিজ্ঞানীদের কথা বিশ্লেষণ করে ব্রিটিশ ট্যাবলয়েড ডেইলি মেইলের এক প্রতিবেদন জানায় তারা এই প্রমান পেয়েছে। জ্যোতির বিজ্ঞানীরা জানায় ২০২০ সালে সবচেয়ে ছোট দিনের সংখ্যা ছিল ২৮ টি। ১৯৬০ সালের পর এটাই সব থেকে ছোট দিন। বিজ্ঞানীদের আভাস চলতি বছরে ছোট দিনের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। বিজ্ঞানীরা ধারণা করছে যে একদিনের গড় সময়কাল ৮৬,৪০০ সেকেন্ডের চেয়ে শূন্য দশমিক শূন্য মিলিসেকেন্ড কম হবে। দিনের দৈর্ঘ্যের অতি সুনির্দিষ্ট রেকর্ড রেখে চলা পারমাণবিক ঘড়িগুলো প্রায় ১৯ মিলিসেকেন্ডের ব্যবধান তৈরি করবে। লাইভ সাইন্সের অপর এক প্রতিবেদন থেকে জানা যায় রেকর্ডে সবচেয়ে দ্রুততম দিন দেখা যায় ২০২০ সালে। কারন ঐ দিন গুলোতে পৃথিবীর অক্ষের চারপাশের ঘূর্ণন গুলো গড় থেকে প্রায় মিলি সেকেন্ড পরিমান দ্রুত ঘোরে। পারমাণবিক ঘড়ির হিসাব অনুযায়ী গত ৫০ বছর ধরে পৃথিবী তার কক্ষপথে একবার ঘুরে আসতে সময় নিয়েছে ২৪ ঘন্টার কিছু কম। ডেইলি মেইলের প্রতিবেদন থেকে আরও জানা যায় ১৯২০ সালের ২০ শে জুলাই পৃথিবীর সবথেকে সংক্ষিপ্ত দিন রেকর্ড করা হয়েছিল। ঐ দিনটি ছিল ২৪ ঘন্টা থেকে ১ দশমিক ৪৬ মিলিসেকেন্ড কম। পরিসংখ্যান অনুযায়ী ২০২০ সালের আগে সব থেকে ছোট দিন রেকর্ড করা হয়েছিল ২০০৫ সালে। তবে গেলো বছর ২৮ বার সেই রেকর্ড ভেঙ্গেছে বলে জানা গিয়েছে। অন্যদিকে আবার এমন ঘটনাকে কেয়ামতের আলামত হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন বিশিষ্ট আলেম ওলামারা। তারা বলেছেন হাদিসে বর্ণিত আছে যে, নবী করীম (সাঃ) কেয়ামতের যে সন আলামতের কথা বলেছেন তার মধ্যে একটি আলামতের উদাহরণ স্বরূপ তিনি বলেছেন-সময় সংকুচিত হয়ে যাবে। সময় সংকুচিত হওয়া মানে বছর মাসের মতো, মাস সপ্তাহের মতো, সপ্তাহ দিনের মতো, আর দিন মনে হবে খেজুর গাছের পাতা পড়ার মতো ক্ষণিক। রাসুল (সাঃ) যে ভবিষ্যৎ বাণী করেছেন আমরা তার মধ্য দিয়েই পার হচ্ছি বলে মন্তব্য করেন বিশিষ্ট আলেমরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here